DIGITAL

October 4, 2022

APTCE 18538973148

মিজো দুষ্কৃতীর আক্রমণে নিহত ছয় আসাম আ রক্ষী, আহত পঁয়ষট্টি জন

 

ইমদাদ হোসেন লস্করের প্রতিবেদন লায়লা পুর 27 শে জুলাই—- ধীরে ধীরে আসাম মিজোরাম সীমান্ত যে উত্তপ্ত হবে সেটা আঁচ করা গেছে, আর হলো ও এমনটাই, কিছু দিন ধরেই আসাম পুলিশের তরফে মিজোরাম সীমান্ত এলাকায় ব্যারিকেড নির্মাণ  সহ অস্থায়ী ভাবে শিবির তৈরি করে মিজো দুষ্কৃতী দের দমন করতে  চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে । এক পক্ষ  কাল পূর্বে কাছাড় পুলিশের এক আধিকারিক দল বিশাল পুলিশ বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে যান, সেখান থেকে মিজো দুষ্কৃতী দের পিছনে সরে যেতে সতর্ক করেন ।

সপ্তাহ যেতে না যেতেই গতকাল দুপুর আনুমানিক আড়াই টা নাগাদ মিজোরাম সরকারের প্রত্যক্ষ মদতে মিজো দুষ্কৃতীরা বিবদমান এলাকার মধ্যে ঢুকে পড়ে কর্তব্যরত পুলিশকর্মী দের সাথে বচসায় জড়িয়ে পড়ে , ক্রমে পরিস্থিতি অ স্বাভাবিক হয়ে পড়ে,  বিকেলের দিকে হঠাৎ মিজো দুষ্কৃতীরা আসাম পুলিশের উপর আচমকা গুলি বর্ষণ শুরু করে , কর্তব্যরত পুলিশকর্মী গন ভাবতেই পারেন নি যে মিজো দুষ্কৃতীরা এভাবে আক্রমণ করবে ।ঘটনা ঘটে গেল, মিজো দুষ্কৃতী দের গুলিতে নিহত হন ছয় পুলিশ কর্মী এবং আহত হন পঁয়ষট্টি জনের অধিক ।সূত্রের দাবি পুলিশ সুপার সহ ধলা ই থানার ওসি সাহা ব উদ্দিন ও আহত হন ।

এখানে উল্লেখ করা আবশ্যক আসাম সরকার কোমল মনোভাব পোষণ করার জন্য মিজো দুষ্কৃতীরা এত বাড়াবাড়ি করলো বলে অভিযোগ উঠেছে ।মূখ্য মন্ত্রী সেদিন সদনে বলেছেন পুলিশের উপর হামলা হলে  পুলিশ বসে থাকবে না , এন কাউন্টার হবে , কিন্তু চব্বিশ ঘণ্টা পার হয়ে যাচ্ছে কোন ধরনের পদক্ষেপ না নেওয়ায় জোরদার চর্চা শুরু হয়েছে।গতকালের ঘটনা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল মিজো দুষ্কৃতীরা কতটুকু বেপরোয়া, তাদের পিছনে সমর্থন আছে উত্তর পূর্বের  বিভিন্ন  জঙ্গি সংগঠনের তাই দিনের পর দিন আসাম মিজোরাম সীমান্ত এলাকায় ঘাঁটি শক্ত করে বসে আছে ।একদা শান্তির দ্বীপ বলে খ্যাত বরাক উপত্যকা আজ অশান্ত হয়ে উঠেছে তা নিয়ে ভাবতে হবে বলে সচেতন মহল মন্তব্য করছেন।গতকালের ঘটনা নিয়ে বরাক উপত্যকার একমাত্র সংগঠন বি ডি এফ গর্জে উঠলো , আগামী কাল বন্ধ পালন করার খবর পাওয়া গেছে।

গতকালের ঘটনা  মনে করিয়ে দিলো প্রয়াত প্রধান মন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী র সেই কথা , মেরা মিটি চাহিয়ে , শুধু একটি ছোট কথা মিজোরামে শান্তি প্রতিষ্ঠা হলো । এবারের ঘটনা নিয়ে কেন্দ্রের ভূমিকা কী হয় তা নিয়ে অপেক্ষায় আছেন বরাক উপত্যকার জনসাধারণ ।অবিলম্বে ব্যবস্থা না নিলে আগামী দিনে বরাক উপত্যকা কাশ্মীর হবে বলে জানিয়েছেন সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা ।