DIGITAL

October 4, 2022

APTCE 18538973148

হাইটেক কেলেঙ্কারি কালাইন উন্নয়ন খণ্ডে, দেরিতে হলেও ফাঁস হলো আসল রহস্য

বিশেষ প্রতিনিধি 5 ই আগস্ট শিলচর– দূর্নীতি মুক্ত প্রশাসনের নামে সরকার বদ্ধপরিকর বললে ও সরকারি আমলাদের মদতে দূর্নীতির পাহাড় যে গড়ে উঠেছে সে ব্যাপারে কতজন জানে, সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হলে ও  সাময়িকভাবে লোক দেখানো তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়।কিন্তু কিছু দিন পর চাপা পড়ে যায়। আর এমন সব ঘটনা সংবাদ মাধ্যমের ও পাশ কেটে যায় ।এমন এক কেলেঙ্কারি সংঘটিত হয়েছে কাঠি গড়া  বিধানসভা কেন্দ্রের কালা ইন উন্নয়ন খণ্ডে , দেরিতে হলেও এম জি এন রেগা ওয়েবসাইটে পাওয়া গেছে তিন দিনের মধ্যে মোট পাঁচ কোটি ঊনিশ লক্ষ দুই শত নিরানব্বই টাকা সরকারি তহবিল থেকে উঠানো হয়েছে । মনে হয় এটাই বোধহয় কালা ইন উন্নয়ন খণ্ডের সর্ব বৃহৎ কেলেঙ্কারি ।

সূত্রের মতে এই উন্নয়ন খণ্ডে র  বিডিও নন্দ কুমার  গোয়ালা অন্যত্র বদলি হলে  উন্নয়ন তো থেমে থাকতে পারে না তার জন্য  জেলা প্রশাসন সময় নষ্ট না করে গ্রাম সেবক হায়দার হোসেন কে 10-02-21 থেকে 28-02-21  পর্যন্ত সময়ের জন্য ভারপ্রাপ্ত বিডিও হিসাবে দায়িত্ব প্রদান করেন ,এদিকে এই উন্নয়ন খণ্ডে হিসাব রক্ষক থাকা সত্ত্বেও অতিরিক্ত ভাবে জনৈক বিমল প্রসাদ সাউ কে এই উন্নয়ন খণ্ডে নিযুক্ত করা হয় হাই টেক কেলেঙ্কারি করার জন্য এমনটাই  আলোচনা চলছে, কিন্তু এসব নিয়ে কোন মাধ্যমে টু শব্দ হয়নি । ভারপ্রাপ্ত বিডিও হিসাবে হায়দার হোসেন মোট  আঠারো দিন থাকার সুযোগে 20-2-21  তারিখে মোট চার কোটি চল্লিশ লক্ষ সাতষট্টি হাজার তেরো টাকা, 22-2-21 তারিখে মোট চুয়াল্লিশ লক্ষ সাত হাজার চারশো আটষট্টি টাকা, এবং 28-2-21 তারিখে মোট তেত্রিশ লক্ষ ছাপ্পান্ন হাজার একশত আঠারো টাকা  অর্থাৎ তিন দিনে মোট পাঁচ কোটি ঊনিশ লক্ষ দুশো নিরানব্বই টাকা এম জি এন রেগা তহবিল থেকে উঠানো হয়েছে ।কিন্তু কোন কোন প্রকল্পে তা বিতরন করা হয়েছে তা নিয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি । সূত্রের দাবি অসম্পূর্ণ কাজের অর্থ হা পিস করার লক্ষ্যে  অযোগ্য ব্যক্তি কে বিডিও পদে এবং অতিরিক্ত ভাবে হিসাব রক্ষক নিযুক্ত করে সম্পূর্ণ আট ঘাট বেধে এই বৃহৎ কেলেঙ্কারি যে সংগঠিত হয়েছে তা নিয়ে তথ্য জানার অধিকার আইনে জনৈক ব্যক্তি আবেদন করেছেন ।

এদিকে অন্য এক সূত্রে জানা গেছে, কাঠি গড়ার বিডিও গ্রেফতারের পর কালা ইন উন্নয়ন খণ্ড এলাকার বেশ কিছু পঞ্চায়েতে যেখান কার মানুষ সচেতন আছেন সেখানে কিছু কাজ করতে হঠাৎ দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন সেই এলাকার বাসিন্দারা। দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকা এম জি এন রেগা কাজে হঠাৎ গতি আসায় সন্দেহ ঘনীভূত হয় । আজ এই প্রতিবেদকের কাছে কালা ইন উন্নয়ন খণ্ড এলাকার মানুষ বললেন দীর্ঘদিন ধরে তাদের এলাকার অর্ধ সমাপ্ত কাজ যেমন ছিল তেমনই আছে, আর সরকার বলছে পুরোনো কাজ গুলো সম্পূর্ণ করতে , কিন্তু সবসময়ই শুনা যায় তহবিলে অর্থ নেই , তাহলে প্রশ্ন উঠা স্বাভাবিক এই বিশাল অঙ্কের টাকা উঠিয়ে কি করা হয়েছে?  কাজ যদি অসম্পূর্ণ ই থাকে তাহলে এই অর্থ গেলো কোথায় তা নিয়ে কাঠি গড়ার বিধায়কের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন এলাকার বাসিন্দারা ।