DIGITAL

December 5, 2022

APTCE 18538973148

কাছাড় জেলার সরবরাহ বিভাগ গরীব কল্যান যোজনা র তথ্য দিতে চাইছেন না – অভিযোগ

শিলচর থেকে ডি, ডি, দত্তের প্রতিবেদন 12  ই নভেম্বর— মহামারী করোনা প্রকোপ বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের যখন রুজি রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে গেছিল তখন মাননীয় প্রধান মন্ত্রী সেই সব মানুষদের জন্য গরীব কল্যান যোজনা র মাধ্যমে অতিরিক্ত মাথা পিছু পাঁচ কেজি করে চাউল,  আটা, ডাল, চানা, আলু ও গবাদিপশু দের জন্য ভূষি বরাদ্দ করেন ।

সমগ্র দেশের সাথে সঙ্গতি রেখে আমাদের বরাক উপত্যকার তিন জেলায় এই সব সামগ্রী বরাদ্দ করা হয় । কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয় পাশের জেলা করিম গঞ্জে গরীব কল্যান যোজনা র যাবতীয় সামগ্রী বন্টন করা হলেও আমাদের কাছাড় জেলার গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বেশিরভাগ সমবায় সমিতিতে একমাত্র চাল ছাড়া আর কিছু দেওয়া হয়নি , আর এই চাল নিয়ে বিস্তর অভিযোগ উঠেছে। রাজ্য সরকারের নির্দেশ মতে মাসে দুই ধার করে মাথা পিছু দশ কেজি করে চাউল দেওয়ার কথা ছিল সেখানে মাথা পিছু সাত কেজি করে চাউল বিতরন করা হয়েছে তাও আবার লিখিত ভাবে আর , অন্যান্য সামগ্রী তো বিতরন করা হয়নি ।

এদিকে মূখ্য মন্ত্রীর ঘোষণার পর থেকেই ডিলারদের টনক নড়ে , সাংবাদিকরা ও বসে নেই,  এই প্রতিবেদক বড় খলা ও কাঠি গড়ার বেশ কিছু  সমবায় সমিতির ডিলারদের খাতা চেয়ে নিয়ে দেখেন যে তাদের খাতায় ও বরাদ্দকৃত চালের পরিমাণ কম লিখে দেওয়া হয়েছে , প্রশ্ন করলে বলেন যে সমবায় সমিতির সম্পাদক বলেছেন ভারতীয় খাদ্য নিগম চাল কম দিয়েছে তাই তারা সেই মতো বন্টন করছেন ।তাদের খাতায় তাদের অজান্তেই আটা  লিখে দেওয়া হয় কিন্তু আটা তাদেরকে দেওয়া হয় না ।সরবরাহ বিভাগের পরিদর্শক ও সমবায় সমিতির সম্পাদক মিলে এসব কেলেঙ্কারি সংঘটিত করছেন বলে অভিযোগ করেছেন বেশ কিছু ডিলার ।

আজ শিলচরের এক হোটেলে বসে এই প্রতিবেদকের কাছে সোনা পুর ও বিক্রম পুর সমবায় সমিতি এলাকার বেশ কিছু গ্রাহক ও সমাজ কর্মী বলেন যে কাছাড় জেলার খাদ্য ও অ সামরিক সরবরাহ বিভাগের উপ অধিকর্তা ও সমবায় সমিতির সম্পাদক যৌথভাবে বিগত 2020-2021 ইংরেজি থেকে গরীব কল্যান যোজনা র বরাদ্দকৃত সামগ্রী লুণ্ঠন করছেন তা ও আবার লিখিত ভাবে , আপত্তি করলে সদুত্তর মেলেনি ,। তাদের অভিযোগ এই সময়ের বরাদ্দকৃত সামগ্রীর প্রতি মাসের তালিকা তথ্য জানার অধিকার আইনে চেয়ে ও পাচ্ছেন না , আজ তারা কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের তদন্ত কারী সংস্থার কাছে অভিযোগ  করবেন বলে জানিয়েছেন এই প্রতিনিধি দল ।তারা আরো ও বলেন যে সরবরাহ বিভাগের কর্মীরা গো খাদ্য কি ভাবে আত্মসাৎ করলেন  তা  বর্তমান সরকারের কাছে এক নির্লজ্জ কেলেঙ্কারি , অবিলম্বে ডিলারদের খাতা ও গ্রাহকদের খাতা  – মূখ্য মন্ত্রীর কথায় চাল মোদীর পুলিশ আমার  ঠিক এই মতো পরীক্ষা করলে যাবতীয় কেলেঙ্কারি পরিস্কার হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা ।