DIGITAL

February 5, 2023

APTCE 18538973148

আসাম রাজ্যের সরবরাহ বিভাগের অবাক কান্ড, সাধারণ মানুষ জানেন না তার নাম আছে কি নেই

নিজস্ব সংবাদ দাতা 20 শে ডিসেম্বর শিলচর— এ যেন রাম জন্মানো র আগেই রামায়ণ রচনার মতো ঘটনা ।সবে মাত্র শুরু হয়েছে আধার কার্ডের সাথে রেশন কার্ডের সংযুক্তি করন কাজ , মাস দুয়েক আগে প্রতিটি রেশন দোকানের ডিলার গন তার দোকানের গ্রাহকদের কাছ থেকে আধার কার্ড সংগ্রহ করেছেন , এবং তা যথারীতি সরবরাহ বিভাগের নির্দেশ মতো সরবরাহ বিভাগের কাছে জমা দিয়েছেন ।

এই সংযুক্তি করনের মূল উদ্দেশ্য ছিল কাদের আধার কার্ড আছে আর  কাদের নেই  তা জানতে চাওয়া হয়েছে। যাদের  নেই তার কারন  কি? সেই মর্মে নির্ধারিত কাগজে কারন দর্শাতে হবে ।  বেশ কিছু অভিযোগ উঠেছে জনা কয়েক ডিলার নাকি নাম কর্তন করে ফেলেছেন ।এই প্রতিবেদক ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে কাছাড় জেলার সরবরাহ বিভাগের উপ অধিকর্তার সাথে দেখা করতে গেলে তিনি জানান নাম কর্তন করার কোনো নির্দেশ  তাদের কাছে নেই । এই প্রতিবেদকের এক অভিযোগ যাচাই করতে গিয়ে দেখা গেলো এই রেশন ডিলারের তালিকায় যাদের নাম থাকার কথা তাদের নেই , অন্য দিকে ডিলার সহ সমবায় সমিতির কর্ম কর্তা দের পরিবারের সদস্যদের প্রত্যেকের নামে এক একটি কার্ড আছে ।সবচেয়ে অবাক করার মতো ঘটনা দেখা গেছে,  ডাক নামে একটি কার্ড আর  ভালো নামে আরেকটি কার্ড । অর্থাৎ একটি একান্ন বর্তী পরিবারের সবার নামে এক একটি কার্ড ।অনেক স্বচ্ছল পরিবারের নামে  AAY  কার্ড আছে ।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে আধার কার্ডের সাথে রেশন কার্ডের সংযুক্তি করন এখনও হয়নি তাহলে সরবরাহ বিভাগের ওয়েবসাইটে এই সব তালিকা কিভাবে শোভা পায়?  এই তালিকায় যাদের নাম আছে তা কিভাবে এবং কাদের মাধ্যমে তৈরি হয়েছে তা খতিয়ে দেখতে তথ্য জানার অধিকার আইনে জানতে চেয়েছেন বেশ কিছু সমাজ কর্মী ।

এদিকে নূতন করে রেশন কার্ডে গ্রাহক দের সংখ্যা লিখে দেওয়া হয়েছে , এই সংখ্যা দিয়ে খোঁজ করলে দেখা যায় যাদের নাম রেশন কার্ডে থাকার কথা তাদের নেই অথচ তাদের কাছে আধার কার্ড সহ অন্যান্য নথি আছে , এই প্রতিবেদক এই ব্যাপারে প্রতিটি এলাকার খাদ্য পরিদর্শকের কাছে বিশদ জানতে চাইলে তারা পাশ কাটিয়ে যান । এ যেন রাম জন্মানো র আগেই রামায়ণ রচনার মতো ঘটনা।

কাছাড় জেলার জেলাশাসক সহ বরাক উপত্যকার জনপ্রতি নিধি গন সরবরাহ বিভাগের ওয়েবসাইটে থাকা তালিকা নিয়ে ওয়াকিবহাল আছেন কি?  এভাবেই মন্তব্য করতে শুনা গেল আজ । এদিকে সরকার মুখে দূর্নীতি  দমন করতে ব্যাপক প্রচার চালাচ্ছে, আর এদিকে সরবরাহ বিভাগের কর্মকর্তা গন  জনগনের অভিযোগ কে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দিব্যি তাদের নিজ স্বার্থ কায়েম করতে চলেছেন এই বিষয়ে মাননীয় মূখ্য মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হচ্ছে ।