DIGITAL

January 29, 2023

APTCE 18538973148

ডলুর প্রস্তাবিত গ্রীণ ফিল্ড এয়ারপোর্ট নিয়ে ষড়যন্ত্রের আভাস পাওয়া যাচ্ছে, অভিযোগ বিশিষ্ট জনের

বিশেষ প্রতিবেদন ৫ ই মে শিলচর— প্রস্তাবিত গ্রীণ ফিল্ড এয়ারপোর্ট নিয়ে সম্প্রতি বরাক উপত্যকার ডলু বাগানের একাংশ শ্রমিক দু তিনটি বাম সংগঠনের নেতাদের পরামর্শে উত্তেজিত হয়ে তীব্র প্রতিবাদী আন্দোলন শুরু করেছে।দফায় দফায় বৈঠক করে প্রস্তাবিত গ্রীণ ফিল্ড এয়ারপোর্ট এই এলাকায় নির্মাণ হলে শ্রমিক দের রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে যাবে বলে আপত্তি জানিয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেছে ।

আজ এই প্রতিবেদক বড়খলা থানার অন্তর্গত ডলু বাগান এলাকায় সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে দেখতে পান এই এলাকায় প্রচুর সখ্যক কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী টহল দিচ্ছে। হঠাৎ করে এই ধরনের নিরাপত্তা বাহিনী নিয়ে স্থানীয় জনাকয়েক শ্রমিকদের কাছে বিশদ জানতে চাইলে তারা বলেন আমাদের এই বাগানের জমিতে গ্রীণ ফিল্ড এয়ারপোর্ট নির্মাণ করা হবে।এই নিয়ে দুই তিনটি বাম সংগঠনের নেতাদের পরামর্শে একাংশ শ্রমিক তীব্র প্রতিবাদী আন্দোলন গড়ে তুলেছে।তারা আরও বলেন যে যেখানে বাগানের মালিক পক্ষ তাদের জমি ছেড়ে দিতে চাইছে যেমনটা মহাসড়কের সময়ে উপযুক্ত মূল্য পেয়ে ছেড়ে দিয়েছে ঠিক সেরকমই এবার ও দিবে বলে জানা গেছে এখানে শ্রমিকদের কোন কিছু করার নেই,কারন জমির মালিক বাগান কর্তৃপক্ষ। শ্রমিক গন কর্মচারী।তারা আরও বলেন যে এই এয়ারপোর্ট এখানে হলে সমগ্র বরাক উপত্যকার মানুষ উপকৃত হবেন।আর এই এলাকার পরিকাঠামো বদলে যাবে।নূতন প্রজন্মের কাছে এই এয়ারপোর্ট এক আশীর্বাদ হবে বলে মনে করছেন তারা।

এখানে উল্লেখ্য যে আজ থেকে ৩৫ বছর পূর্বে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী চেয়ে ছিলেন উত্তর পূর্ব রাজ্য গুলির মানুষের উন্নত মানের চিকিৎসা প্রদানের জন্য বরাক উপত্যকায় NEIGHRIM  নামে হাসপাতাল গড়ে তোলা হবে সেই মতো জমি নির্দ্ধারিত করতে জেলা প্রসাশন কে আদেশ ও দেওয়া হয়, কিন্তু দুঃখের বিষয় সেই সময় বরাক উপত্যকার সাংসদ ও বিধায়ক গন জনা কয়েক চিকিৎসক ও নার্সিং হোম মালিকদের স্বার্থে বরাক উপত্যকায় এই উন্নত মানের চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠুক চান নি। ফলে বরাক উপত্যকার আনুমানিক চল্লিশ লক্ষ মানুষ চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এরপর আবারও বরাক উপত্যকার মানুষের চিকিৎসা ব্যবস্থা প্রদান করতে এগিয়ে আসে কাশীর শঙ্করাচার্য মালটি স্পাশালিয়েটি হাসপাতাল  কর্তৃপক্ষ , তারজন্য ও উদার বন্দ  বিধানসভা নির্বাচন চক্রের  অরুণা বন্দ  চা বাগানের জমিতে এই হাসপাতাল গড়ে তুলতে জমি নির্দ্ধারিত হয় , সেখানে ও আগের মত আন্দোলন ও প্রতিবাদ শুরু হয় ফলে সেটা ও হাত ছাড়া হয়। ফলে বরাক উপত্যকার মানুষ সর্ব শান্ত হয়ে দক্ষিণ ভারতের রাজ্য গুলিতে ছুটে যান ।এখন স্বাভাবিকভাবেই এই সব বিষয়ে যারা কলকাঠি নেড়ে সাধারণ মানুষের চিকিৎসা সেবা কেড়ে নিয়েছেন ইতিহাস তাদের ক্ষমা করবে না।

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার বেশ কিছু গ্রীন ফিল্ড এয়ারপোর্ট তৈরি করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে, আমাদের বরাক উপত্যকার জনসাধারণের  ভাগ্যে জুটে গেছে একটি গ্রীণ ফিল্ড এয়ারপোর্ট, বর্তমান নব প্রজন্মের যুবক যুবতী দের জন্য এই এয়ারপোর্ট এক আশীর্বাদ স্বরূপ।বরাক উপত্যকার তিন জেলার মানুষ উন্নত মানের বিমান পরিষেবা ভোগ করতে পারবেন।জানা গেছে এখান থেকে সরাসরি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট উড়বে ।এই এয়ারপোর্ট নির্মানের জন্য বড়খলা থানার অন্তর্গত ডলু বাগানের জমিতে গ্রীণ ফিল্ড এয়ারপোর্ট তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিতেই  যেভাবে দু দুবার বরাক উপত্যকার মানুষের চিকিৎসা সেবা কেড়ে নেওয়া হয়েছে ঠিক সেভাবেই উন্নত মানের বিমান পরিষেবা থেকে বঞ্চিত করতে দু তিনটি বাম সংগঠনের নেতাদের পরামর্শে একাংশ শ্রমিক যেভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন তা নিয়ে রীতিমতো এই বাগানের শিক্ষিত যুব সমাজ সহ বরাক উপত্যকার সুশীল সমাজের সমাজ সেবী গন মোটেই খুশি নন। আজ এই প্রতিবেদক কে স্থানীয় সুনাগরিক গন বলেন যেখানে বাগানের মালিক পক্ষ তাদের জমি ছেড়ে দিতে আপত্তি করছেন না সেখানে মুষ্টীমেয় শ্রমিক দের আপত্তি বরাক উপত্যকার চল্লিশ লক্ষ মানুষের স্বার্থের পরিপন্থী বলে মনে হচ্ছে।আজ যাদের উস্কানিতে বরাক উপত্যকার মানুষ উন্নত মানের চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারাই আবার সম্প্রতি আন্দোলন গড়ে তুলতে চাইছেন তাদের দরদ কতটুকু মানানসই তা ভবিষ্যৎ ই বলবে।

আজকের এই কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন দেখে সচেতন মহল মনে করছেন এবারের সরকার পূর্বতন সরকারের মতো পিছু হটবে না, উন্নয়ন মূলক প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে আপোষের পথে যে হাঁটবে না তা রীতিমত পরিস্কার মনে হচ্ছে।