DIGITAL

December 5, 2022

APTCE 18538973148

সাংবাদিকতার একাল ও সেকাল ,দেশ গঠনে সাংবাদিকদের ভূমিকা –অভিমত

বিশেষ প্রতিবেদন ১৭ ই নভেম্বর শিলচর — গতকাল ছিলো জাতীয় প্রেস দিবস, সমগ্র দেশে বিভিন্ন সেমিনারে দেশ গঠনে সংবাদ পত্রের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা চক্রে সাংবাদিক সংবাদ পত্রের প্রকাশক ও সরকারি কর্মকর্তাদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। আমাদের কাছাড় জেলার জেলা শাসকের কনফারেন্স হলে ও এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।এই সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন বরাক উপত্যকার প্রবীণ ও নবীন সাংবাদিক ও প্রেস ক্লাবের সম্পাদক ও দৈনিক সাময়িক প্রসঙ্গ পত্রিকার সম্পাদক তথা কর্ণধার।

আলোচনা চক্রে দেশ গঠনে সাংবাদিকদের ও সংবাদ মাধ্যমের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভায় শিলচর প্রেস ক্লাবের সম্পাদক শঙ্কর দে সুন্দর ভাবে তুলে ধরেন সাংবাদিকদের সমস্যা।এই আলোচনা সভায় দৈনিক সাময়িক প্রসঙ্গ পত্রিকার সম্পাদক তৈয়মুর রাজা চৌধুরী বলেন, যে উদ্দেশ্য নিয়ে তিনি পত্রিকা প্রকাশ শুরু করেছিলেন তাতে যেন একটা খামতি দেখছেন, তাঁর বক্তব্যে তিনি অপকটে স্বীকার করেছেন তিনি অসহায়।

এখানে উল্লেখ্য যে সাংবাদিক, সংবাদ প্রকাশন গোষ্ঠী ও সরকারের পারস্পরিক সহযোগিতা ছাড়া দেশ গঠন সম্ভব নয়। গনতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় বিরোধী দলের ভূমিকা যথেষ্ট না থাকলে সরকার স্বৈরাচারী হয়ে যায়,যেমনটা কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের আমলে চলছে। এমতাবস্থায় সাংবাদিক ও সংবাদ মাধ্যম বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করতে পারে। কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয় বর্তমান সময়ে দেখা যাচ্ছে সংবাদ মাধ্যম কে যতটুকু গুরুত্ব দেওয়ার কথা সেখানে তা দেওয়া হচ্ছে না। সাংবাদিক গন সরকারের কাজকর্মের সমালোচনা করে জনমত গড়ে তোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন কিন্তু তা রীতিমত গঠন করতে পারছেন না রাজনৈতিক দলের জন্য।

এবার আসি বিগত তিন দশক পূর্বে সাংবাদিক গন যে সংবাদ পরিবেশন করতেন তাতে দেখা যেতো প্রায় সময়ই উপসংহারে লিখতেন দৃষ্টি আকর্ষণ করা যাচ্ছে।এখন আর এই দৃষ্টি আকর্ষণ শব্দ চোখে পড়ে না।যেমন যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পর্কিত সংবাদে লেখা হতো পূর্ত বিভাগের ইঞ্জিনিয়ারের দৃষ্টি আকর্ষণ করা যাচ্ছে, শিক্ষা বিভাগের সমস্যা সম্পর্কিত সংবাদে লেখা হতো জেলা স্কুল পরিদর্শক দৃষ্টি দিবেন কি, জেলা শাসক, বিধায়ক, পুলিশ সুপার তাদের ও দৃষ্টি আকর্ষণ করে সংবাদ পরিবেশন করা হতো,আর তারা দৃষ্টি পাত করতেন।এখন আর কেউ দৃষ্টি আকর্ষণ লেখেন না মনে হয় এই কারণে যে সবাই দৃষ্টি হীন, অন্ধ হয়ে গেছেন। অনেক সাংবাদিক বন্ধু দের বলতে শুনা যায় সারাদিন হাড় কাটা পরিশ্রম করে সংবাদ সংগ্রহ করে যখন সংবাদ পত্রের কার্যালয়ে পাঠানো হয় তখন তা আটকে যায় বিভিন্ন কারণে, সরকারের বিরুদ্ধে লেখা হলে কতৃপক্ষ  সেই সংবাদ প্রকাশ করেন না এডভার্টাইজিং বন্ধ করে দেওয়ার ভয়ে।ফলে সাংবাদিকদের ও ক্ষোভ আছে।

এদিকে অনেক সাংবাদিক এখন ডিজিটাল মিডিয়া যোগে সরকারের সমালোচনা করে তাদের প্রতিবাদী কণ্ঠ সামাজিক মাধ্যমে তুলে ধরে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন,আর তাতে সুফল ও মিলছে । এখানে সাংবাদিকদের বাক স্বাধীনতা অটুট থাকে আর সরকার ও বাধ্য হয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করে ।তাই জাতীয় প্রেস দিবসে সাংবাদিকদের ভূমিকা হোক এক প্রহরীর মতো এমনটাই জানিয়েছেন প্রবীণ সাংবাদিক গন।