DIGITAL

February 5, 2023

APTCE 18538973148

আসাম কর্মচারী প্রণাম আইন ২০১৭ নিয়ে সচেতনতা সভা শিলচরে

নিজস্ব সংবাদদাতা শিলচর ৯ ই ডিসেম্বর —- গতকাল শিলচরের গান্ধী ভবনে অনুষ্ঠিত হলো আসাম কর্মচারী প্রনাম আইন ২০১৭ এর উপর ভিত্তি করে এক সচেতনতা সভা।আসাম সরকার কর্তৃক গঠিত আসাম রাজ্য প্রনাম কমিশনের চেয়ারম্যান বি,ভি, প্যারিলাল এর উপস্থিতিতে এবং কাছাড় জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই সচেতনতা সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে চেয়ারম্যান বলেন দেখা গেছে অনেক সময় সরকারি কর্মচারী গন তাদের পিতা মাতা এবং তাদের শারিরীক ভাবে অক্ষম ভাইবোন দের কে বঞ্চিত করে দিব্যি সংসার চালাচ্ছেন , মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই নিষ্ঠুরতা কে দূর করতে প্রনাম আইন ২০১৭ সংসদে পাস করেন পরবর্তীতে তা আইনে রূপান্তরিত হয়।

এই প্রনাম আইন আসামে প্রবর্তন করতে আসামের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সানোয়াল প্রথম পদক্ষেপ গ্রহণ করেন, পরবর্তীতে বর্তমান আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা তা বাস্তবায়ন করতে তৎপর হলেন। গতকালের সচেতনতা সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে চেয়ারম্যান বলেন রাজ্য সরকারের কোনো কর্মচারী যদি তার পিতা মাতা এবং তাদের শারিরীক ভাবে অক্ষম ভাইবোন দের বঞ্চিত করছেন তাহলে বঞ্চিত সদস্য গন সরাসরি এই কর্মচারির বেতন বিতরণ কারি আধিকারিকের কাছে লিখিত ভাবে আবেদন করতে পারবেন। বেতন বিতরণ কারি আধিকারিক যদি বঞ্চিত আবেদনের সত্যতা নিশ্চিত হন তাহলে তিনি অভিযুক্ত কর্মচারীর বেতন থেকে ১০% অর্থ এবং বিশেষ কারণে ১৫% অর্থ কর্তন করে আবেদন কারি কে প্রদান করতে পারবেন।যদি দেখা যায় আবেদনের ৯০ দিন পেরিয়ে গেছে তাহলে আবেদন কারি বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আবেদন করতে পারবেন, এখানে ও যদি ৬০ দিন পেরিয়ে যায় এবং কোনো ধরনের তৎপরতা দেখা যায়নি তখন সরাসরি রাজ্য সরকার কর্তৃক গঠিত কমিশনের চিফ কমিশনারকে আপীল জানাতে পারবেন আবেদন কারি গণ এবং ৯০ দিনের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

অন্যদিকে রাজ্য সরকারের কোনো কর্মচারীর অবসরের পূর্বে মৃত্যু হলে তার উত্তরাধিকারি গন যদি শারীরিক ভাবে অক্ষম কোনো সদস্য বা শিশু কে বঞ্চিত করেন সেখানে ও এই আইনের অধীনে আবেদন করতে পারবেন।  অতিরিক্ত জেলা শাসক দীপক জিডুঙ  সচেতনতা সভায় অংশগ্রহণ কারি বিভিন্ন বিভাগের আধিকারিক দের আহ্বান জানান এই আইনের উদ্দেশ্য নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করে ন্যায় প্রদান করতে এগিয়ে আসতে। গতকালের সচেতনতা সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুব্রত সেন,সহ কারি আয়ুক্ত এইচ,মিলি, নির্বাচন আধিকারিক কিষাণ চরাই, জেলা সংযোজক হিমা শ্রী ডেকা সহ অন্যান্য আধিকারিক গণ।

এখানে উল্লেখ্য যে প্রণাম আইন সর্ব প্রথম আসাম রাজ্যে  কার্যকর করা হয়েছে পরবর্তীতে তা ভারতের অন্যান্য রাজ্যে কার্যকর করা হবে ।